অনলাইনে আয়আউটসোর্সিংডিজিটাল মার্কেটিংফ্রিল্যান্সিং

এসইও শিখুন অনলাইনে আয় করুন : চতুর্থ পর্ব

‘এসইও শিখুন অনলাইনে আয় করুন’ নামে ধারাবাহিকের আজ তৃতীয় পর্বে থাকছে সার্চ ইঞ্জিন গুগল এবং বিং ওয়েব মাস্টার গাইডলাইনের বিভিন্ন নীতিমালা এবং ব্যবহারকারীর কথা মাথায় রেখে কীভাবে ওয়েবসাইট তৈরি করা হবে, সেসব বিষয়। এ বিষয়গুলো অনুসরণ করে আপনার ওয়েবসাইটটিকে সার্চ ইঞ্জিনবান্ধব এবং সার্চ ইঞ্জিনের শাস্তি (পেনাল্টি) থেকে রক্ষা করতে পারবেন।

সার্চ ইঞ্জিন কী?
সার্চ ইঞ্জিন হলো ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরদাতা মেশিন বা যন্ত্র যা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট খোঁজা, সেগুলোকে বোঝা, প্রাসঙ্গিকতা (রিলেভেন্সি) অনুসারে সাজানো। যখন কোনো ইন্টারনেট ব্যবহারকারী কোনো কিছু খোঁজ করেন (সার্চ) তখন তাঁর সেই সার্চ অনুযায়ী তা ফল বের করে দেখানো সার্চ ইঞ্জিনের কাজ। সার্চ ইঞ্জিনের সকল নিয়ম অনুসরণ করে আপনার কনটেন্টকে সার্চ ইঞ্জিনের রেজাল্ট পেজের প্রথম পাতায় থাকতে হবে। এটা নিশ্চিত করার জন্য এসইও-এর বিকল্প নেই। আপনার কনটেন্ট বা ওয়েবসাইট যদি সার্চ ইঞ্জিন খুঁজে না পায় তবে তা SERP-এ দেখানোর কোনো সম্ভাবনা নেই। বর্তমানে সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজকে বলা হয় SERPs।

কীভাবে সার্চ ইঞ্জিন কাজ করে?

সার্চ ইঞ্জিন কীভাবে কাজ করে:
সার্চ ইঞ্জিনের প্রধানত তিনটি কাজ করে থাকে। যা হলো:
১. ক্রলিং: ইন্টারনেটের সব ধরনের কনটেন্ট এবং কোড ইউআরএলসহ খুঁজে বের করা।
২. ইনডেক্সিং: ক্রলিং প্রসেসের বা ক্রলিং প্রক্রিয়ার পর তা সুনির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে সেগুলো সংরক্ষণ (স্টোরেজ) এবং গুছিয়ে (অর্গানাইজড) ফেলা। একবার ইনডেক্স করা তথ্য পরবর্তীতে ইউজারের সার্চ এবং রিলেভেন্সি অনুযায়ী সার্চ রেজাল্টে দেখাবে।
৩. র‍্যাঙ্কিং: ইউজারের সার্চ অনুযায়ী ইনডেক্সিং করা কনটেন্ট থেকে পর্যায়ক্রমে প্রাসঙ্গিকতা ও সঠিক ফলাফল হিসেবে সর্বোত্তম কনটেন্টগুলো দেখানো যা কিনা তার র‌্যাংক করা।

সার্চ ইঞ্জিন কি ক্রলিং করে?
ক্রলিং হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিনের একটি প্রক্রিয়া বা প্রসেস যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন এক বা একাধিক বটের/রোবটের মাধ্যমে (অনেকে এটাকে ‍স্পাইডার বা ক্রলার নামে অভিহিত করেন) ইন্টারনেটের সব ধরনের নতুন ও আপডেটেড কনটেন্ট এবং কোড ইউআরএল সহ খুঁজে বের করে।
কনটেন্ট বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেমন: ওয়েব পেজ, ইমেজ/ছবি, ভিডিও, অডিও, পিডিএফ ইত্যাদি। কিন্তু মনে রাখতে হবে যে, এসব কনটেন্ট ইন্টারনেটে লিংকের মাধ্যমে খুঁজে পাওয়া যায়।
গুগল বট ক্রলিং শুরু করে কিছু ওয়েব পেজ ফেচিং-এর মাধ্যমে, তারপর ওই ওয়েব পেজের লিংক ধরে অন্যান্য পেজ ক্রলিং করে। এভাবে লিংকের মাধ্যমে নতুন নতুন কনটেন্ট খুঁজে পায় এবং তা ইনডেক্স-এ ‍যুক্ত করে, যাকে ক্যাফিন বলা হয়। যেখানে বিশাল একটি ডেটাবেইসে ক্রলিং করা তথ্যগুলো জমা করে রাখা হয় এবং যখন কোনো ইউজার সার্চ করে তখন তাঁর সার্চ অনুযায়ী তথ্য মিলিয়ে দেখা হয়।

সার্চ ইঞ্জিন ইনডেক্সিং কী?
ক্রলিং প্রক্রিয়ার পর সার্চ ইঞ্জিন তা সুনির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে তথ্যগুলোকে একটি বিশাল ডেটাবেইসে সংরক্ষণ এবং অর্গানাইজড করে থাকে। পরবর্তীতে যখন কোনো ইউজার সার্চ করে, তখন সার্চ ইঞ্জিন সার্চ এবং রিলেভেন্সি অনুযায়ী ইউজারকে সার্চ রেজাল্টে সেটা দেখায়।

সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাঙ্কিং
যখন একজন ইউজার সার্চ করে, সার্চ ইঞ্জিন তখন তার ইনডেক্সকৃত বিশাল ডেটাবেইস/তথ্যভান্ডার থেকে ইউজারের সার্চ অনুযায়ী সবচেয়ে ভালো তথ্যগুলো যা সার্চের সঙ্গে মিলে তা দেখায়। এভাবে সার্চ রেজাল্ট দেখানোর পদ্ধতিকে র‌্যাঙ্কিং বলা হয়। সার্চ ইঞ্জিনের অ্যালগরিদম মেনে কাজ করে থাকে র‌্যাংকিং। আপনি সার্চ করার পর যে ওয়েব সাইটটি প্রথম দেখেন তা ইউজারের সমস্যার সুনির্দিষ্ট সমাধান দিতে পারবে বলে সার্চ ইঞ্জিন বিশ্বাস করে।

আরও পড়ুন:
এসইও শিখুন: পর্ব ১
এসইও শিখুন: পর্ব ২
এসইও শিখুন: পর্ব ৩

ট্যাগ
আরো দেখুন

সম্পর্কিত পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close